১০০ ভরি স্বর্ণ চুরি

0
300

শোর কোতোয়ালি মডেল থানা পার্শ্ববর্তী একটি স্বর্ণের দোকানে দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনা ঘটেছে। চোরের দল দোকানের তালা ভেঙে ১’শ ভরি স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে গেছে বলে দাবি করেছেন প্রতিষ্ঠানটির মালিক।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) যশোর শহরের চৌরাস্তা-থানা এলাকার প্রিয়াঙ্গন জুয়েলার্সে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ চোরদের ফেলে যাওয়া আলামত এবং দোকানের সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করেছে।

ভিডিও ফুটেজের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ৭/৮জনের চোরের দল স্বর্ণ চুরির কাজে অংশ নেয়। প্রথমে দোকানের সামনে কয়েকজন যুবক অবস্থান নেয়। এর কয়েক সেকেন্ডের ব্যবধানে সেখানে আরও কয়েকজন যুবক আসে। সবমিলিয়ে ৭/৮ জন হবে। এদের মধ্যে একজনের হাতে একটি বড় ত্রিপল ছিলো। ত্রিপল টানিয়ে প্রথমে তারা দোকানের সামনের অংশটি আড়াল করে। এরপর তালা ভেঙে দোকানের ভেতরে ঢোকে লাল গেঞ্জি ও মাথায় টুপি পরা এক যুবক। পরে সে নীল মাস্ক পরে ১০ মিনিটের মধ্যেই দোকান থেকে বিভিন্ন স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে পালিয়ে যায়।’

প্রতিষ্ঠানটির মালিক অমিত রায় আনন্দ বাংলানিউজকে বলেন, ‘বাড়ি পৌঁছানোর ১৫ মিনিটের মধ্যে চুরির খবর পেয়ে ফিরে আসি। আমার দোকানে কোনো কর্মচারি নেই। আমি নিজেই দোকান পরিচালনা করি। কি পরিমাণ স্বর্ণ চুরি হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, হিসাব না করে কিছুই বলতে পারছি না, অনুমানিক ১’শ ভরি হবে।’

সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ সালাউদ্দিন সিকদার, যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি-তদন্ত) সমীর কুমার বিশ্বাসহ পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তারা।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ সালাহ উদ্দিন সিকদার বলেন, চোরদের ফেলে যাওয়া আলামত জব্দ করা হয়েছে। সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ পর্যালোচনা করা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ ভরি স্বর্ণ চুরি হয়েছে। এ ঘটনায় নিয়মিত মামলা হবে। আসামিদের আটকে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

যশোর জেলা জুয়েলার্স মালিক সমিতির সভাপতি সঞ্জয় চন্দ্র চন্দ বলেন, এ ঘটনা নিয়ে পঞ্চমবারের মতো লুটের ঘটনা ঘটলো। পুলিশ দ্রুত স্বর্ণ উদ্ধার করতে না পারলে স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা কঠিন হবে। চুরির খবর পেয়ে আমরা সব জুয়েলার্স বন্ধ করে থানায় গিয়ে ছিলাম। পুলিশ দ্রুত স্বর্ণ উদ্ধার এবং জড়িতদের আটকের আশ্বাস দিলে আমরা চলে আসি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here