সাইফউদ্দিনের অপেক্ষায় আগামী

0
153

অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপের প্রাপ্তি ছিলেন বেশ ক’জন। সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান এবং তাসকিন আহমেদ বাংলাদেশের ক্রিকেটের বড় বিষয় হতে যাচ্ছেন। বার্তাটা ২০১৫ বিশ্বকাপে ক্রিকেট বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। যদিও তারা তাদের প্রতিভার স্বাক্ষর ঠিক মতো রাখতে পারেননি। তবে টাইগার তারুণদের ঝান্ডা উচিয়ে ধরতে দেখে বিশ্ব। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ভালোই খেলেছে। সেমির স্বপ্ন ভাঙলেও লড়াই করেছে। প্রাপ্তির খাতায় যোগ হয়েছে দারুণ কিছু রেকর্ডও। তবে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বড় প্রাপ্তি অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিন।

বল হাতে তিনি আগেও ভালো করেছেন। কিন্তু তাকে বিশ্বকাপ দলে নেওয়া হয় অলরাউন্ডার হিসেবে। সেই স্বাক্ষরও তিনি মাঝে-মধ্যে দেখিয়েছেন। নিউজিল্যান্ডে সফরে একটা ফিফটি করেন। তবে বিশ্বকাপে তিনি জানান দিয়েছেন, অলরাউন্ডার হিসেবে আস্থার প্রতীক হতে চলেছেন তিনি। তার সামর্থ্য আছে বাংলাদেশের একজন থিসারা পেরেরা, হার্ডিক পান্ডিয়া কিংবা মার্কোস স্টইনিস হওয়ার।

বাংলাদেশ দীর্ঘদিন একজন পেস অলরাউন্ডারের অভাব বোধ করেছে। সেই অভাব সাইফউদ্দিন ভালো মতোই পূরণ করতে সক্ষম। বিশ্বকাপে তিনি তা প্রমাণ করেছেন। নতুন বল হাতে তুলে নিয়েছেন। আবার স্লগ ওভারে টাইট বল করার চেষ্টা করেছেন। ভেরিয়েশন কাজে লাগানোর চেষ্টা করছেন। উইকেটও পেয়েছেন। এবার ভারতের বিপক্ষে তার দারুণ শটগুলো প্রমাণ করেছে, ব্যাটিংটা ঘষামাজা করলে ভবিষ্যতে দুর্দান্ত কিছু করে দেখাবেন তিনি। বিশ্বকাপে কিউইদের বিপক্ষে ভালো এক ইনিংসও তার প্রমাণ বহন করে।

সাইফউদ্দিন ভারতের বিপক্ষে যখন ব্যাটিংয়ে আসেন বিপাকে বাংলাদেশ। তবে সম্মানজনক হারের জন্য ব্যাটিং তিনি করেননি। জিততে চেয়েছেন। তার ৩৮ বলে ৫১ রানের হার না মানা ইনিংসে ছিল আত্মবিশ্বাসের ঝলক। সাইফ বলেন, ‘শেষ করে ফিরবো এমন কিছুর অপেক্ষায় ছিলাম আমি। আত্মবিশ্বাসী ছিলাম। বল ব্যাটে পাচ্ছিলাম। দলকে জেতাতে পারবো আশায় ছিলাম। বড় দলের বিপক্ষে নায়ক হতে চেয়েছিলাম। কিন্তু দূভাগ্য আমাদের।’

সাইফউদ্দিন যে দলকে জেতাতে চেয়েছিলেন ম্যাচ শেষে তার হতাশার বক্তব্য থেকে বোঝা যায়, ‘সম্ভবত আন্তর্জতিক ক্রিকেটে দলকে আমি কখনো জেতাতে পারবো না। অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যায়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে চট্টগ্রামে দলকে একটা জয় এনে দিয়েছিলাম। সব সময়ই আমি দেশের হয়ে ওমন একটা ম্যাচ খেলতে চেয়েছি।’

বাংলাদেশ দুই ওভার থাকতে ২৮ রানে হেরেছে। কে জানে কেউ একজন সঙ্গ দিলে সাইফউদ্দিন হয়তো কাঙ্খিত সেই মুহূর্ত দলকে এনে দিতে পারতেন। তার বুকে সেই বল ছিল। তাই তো তিনি বলেন, ‘প্রথম থেকে শেষ বল পর্যন্ত মাথায় ছিল ভারতের বিপক্ষে খেলছি। জিতে আমরাও পারি এটা প্রমাণ করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু মুস্তাফিজ বোল্ড হতেই মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে।’ কষ্ট বাংলাদেশ দলের ভক্তরাও পেয়েছেন। সঙ্গে প্রাপ্তি হিসেবে পেয়েছেন সাইফউদ্দিন। নতুন তারকা তাই ভক্তদের থেকে টুপি খোলা স্যালুট পাচ্ছেন। আশায় বুক বাধছেন, আগামী দিন হবে সাইফউদ্দিনের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here