বিপদসীমার ৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে তিস্তার পানি

0
205

নীলফামারী: ভারি বর্ষণ ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার ২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে চর অঞ্চলের কিছু মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধা ৬টায় লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা দোয়ানী তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয় ৫২ দশমিক ৮৫ সেন্টিমিটর। যা বিপৎসীমার ২৫ সেন্টিমিটার উপর। আর তাই ব্যরাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে পানির প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে।

তিস্তার চরাঞ্চলের ১ নম্বর ওয়ার্ডের আশরাফুল ইসলাম মোবাইল ফোনে কালের কণ্ঠকে বলেন, তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। চরাঞ্চলের কিছু মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। 

দোয়ানী ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম বলেন, উজানের পানি ও বৃষ্টির কারণে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার ২৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ বিষয়ে হাতীবান্ধা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মামুন কালের কণ্ঠকে বলেন, তিস্তার পানি ও চরাঞ্চলের মানুষের খোঁজ-খবর সব সময় নেওয়া হচ্ছে। 

এতে তিস্তা নদীর অববাহিকার ডিমলা উপজেলার ঝাড়শিঙ্গেশ্বর, কিসামত ছাতনাইনচর, বাইশপুকুর, ছোটখাতা, ছাতুনামার চর, ভেন্ডাবাড়ির চর, ফরেস্টের চর, পূর্বছাতনাই, টেপাখড়িবাড়ি, চরখড়িবাড়ি,বানপাড়া ছাড়াও আশপাশের নি¤œমাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। নীলফামারী জেলা ছাড়াও পার্শ্ববর্তী জেলা লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা, চরদহগ্রাম, হাতীবান্ধা উপজেলার সানিয়াজান, গড্ডিমারী, সির্ন্দুনা, পাটিকাপাড়া, ডাউয়াবাড়ী, কালীগঞ্জ উপজেলার-পশ্চিম কাশিরাম, চর বৈরাতী, নোহালী, শৈলমারী, ভোটমারী, হাজিরহাট, আমিনগঞ্জ, কাঞ্চনশ্বরও রুদ্ধেশ্বর, আদিতমারী উপজেলার চন্ডিমারী, দক্ষিণ বালাপাড়া, আরাজি শালপাড়া, চরগোর্দ্ধন ও সদর উপজেলার কালমাটি, খুনিয়াগাছা, রাজপুর, তিস্তা, তাজপুর, গোকুন্ডা, মোগলহাট, বনগ্রামসহ তিস্তা নদীর তীরবর্তী।
এতে করে ব্যারাজের ৪৪টি গেট খুলে রাখা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here