অপেক্ষায় ছিলেন ১০০ এমপি

0
515

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণ হচ্ছে এমন গুঞ্জন ছিল প্রায় মাসখানেক ধরে। টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার সাত মাস পর একদফা মন্ত্রিসভা পুনর্বিন্যাস করা হলেও যুক্ত হয়নি নতুন কোনো মুখ। মন্ত্রিসভায় গতকাল একজন প্রতিমন্ত্রী নতুন যুক্ত হয়েছেন। আর পদোন্নতি পেয়ে প্রতিমন্ত্রী থেকে মন্ত্রী হয়েছেন আরেকজন। সম্প্রসারিত মন্ত্রিসভায় দুজন শপথ নিলেও টেলিফোনের অপেক্ষায় ছিলেন শতাধিক দলীয় এমপি ও নেতা। গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় এই দুজনকে বঙ্গভবনের দরবার হলে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ শপথ বাক্য পাঠ করান। নতুন মুখ হিসেবে আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ফজিলাতুন্নেসা ইন্দিরাকে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছে। তিনি সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি। এত দিন প্রধানমন্ত্রী নিজে এ মন্ত্রণালয়ের দেখভাল করেছেন। আর প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করে আসা ইমরান আহমেদকে একই মন্ত্রণালয়ের পূর্ণ মন্ত্রী করা হয়েছে। এ দুজনকে দফতর বণ্টন করে গতকাল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে  প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। সন্ধ্যা ৭টা ৩৫ মিনিটে প্রথমে রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে শপথবাক্য পাঠ করেন মন্ত্রী ইমরান আহমেদ। শপথ গ্রহণ শেষে তিনি শপথ বইয়ে স্বাক্ষর করেন। এরপর শপথ নেন প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন্নেসা। পরে শপথপত্রে সই করেন তিনি। শপথ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। দরবার হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদসহ মন্ত্রিসভার সদস্য ও আমন্ত্রিত অতিথিরা শপথ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ হোসেনও শপথ অনুষ্ঠানে ছিলেন। ইমরানকে মন্ত্রী এবং ফজিলাতুন্নেসাকে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দিয়ে আনুষ্ঠানিক আদেশ শুক্রবারই জারি করেছিল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। একজনের পদোন্নতি এবং একজনের অন্তর্ভুক্তিতে মন্ত্রিসভায় এখন মন্ত্রীর সংখ্যা বেড়ে হলো ২৫ জন। তবে প্রতিমন্ত্রীর সংখ্যা আগের মতই ১৯ জন এবং উপমন্ত্রীর সংখ্যা তিনজন থাকল। সূত্রমতে, বর্তমান মন্ত্রিসভার নতুন সদস্য হতে অপেক্ষায় ছিলেন শতাধিক এমপি ও নেতা। সরকার প্রধানের দৃষ্টিতে পড়তে তারা গণভবনে যাতায়াত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। বিভিন্ন মাধ্যমে দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টাও করেছেন অনেকে। আবার নিজস্ব অনুসারীদের দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘অমুক ভাইকে মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চাই, মন্ত্রিসভায় আসছেন অমুক ভাই ধরনের বার্তা দিয়েছেন তারা। আবার মন্ত্রিসভার সদস্যদের পাশাপাশি গণমাধ্যমের কর্মীদের কাছেও খোঁজখবর নিয়েছেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল বিজয়ের পর গত ৭ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে টানা তৃতীয় মেয়াদে শপথ নেন শেখ হাসিনা। ২৪ জন মন্ত্রী, ১৯ জন প্রতিমন্ত্রী এবং তিনজন উপমন্ত্রীকে নিয়ে নতুন সরকারের মন্ত্রিসভা সাজান তিনি। পাঁচ মাসের মাথায় মন্ত্রিসভায় প্রথম পরিবর্তন এনে প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে সরিয়ে আনা হয় তথ্য মন্ত্রণালয়ে। পাশাপাশি স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় এবং ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে দায়িত্বরত মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়া হয়। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ে এতদিন কোনো পূর্ণ মন্ত্রী ছিলেন না। সিলেট-৪ আসনের এমপি ইমরান আহমেদ প্রতিমন্ত্রী হিসেবে একাই এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব সামলাচ্ছিলেন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here