রাস্তায় কুড়িয়ে পাওয়া সেই শিশুর বাড়িতে ডিসি-এসপি

0
37

উমর ফারুক পঞ্চগড় জেলা প্রতিনিধি :পথের ধারে কুড়িয়ে পাওয়া শিশু রাজকুমারী রুমঝুমকে দেখতে তার বাড়ি হাজির হলেন পঞ্চগড়ের ডিসি সাবিনা ইয়াসমিন মালা ও এসপি মোহাম্মদ ইউসুফ পঞ্চগড় সদর উপজেলার অমরখানার ভিতরগর এলাকায় যান ডিসি। সঙ্গে ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।শিশু রুমঝুমকে দেখে এসে বিকেলে নিজের ফেসবুক ওয়ালে অনুভূতি প্রকাশ করেন ডিসি সাবিনা ইয়াসমিন। ডিসির ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো।পথের ধারে কুড়িয়ে পাওয়া অমূল্য রতন রাজকুমারী রুমঝুম। ছোট্ট বুকটা কি পাষাণভার সইলো। হাসপাতালে বিছানায় একাকি শুয়ে পার করলো কয়েকটা দিন। অন্য মায়েদের বুকের দুধ পান করলো শুধু টিকে থাকার প্রত্যয়ে। আর আঁকুপাঁকু করে মাকে খুঁজলো। তার মাকে খোঁজাটা আমরা অনুভব করতে পেরেছিলাম। তাইতো দেশ-বিদেশের অনেক সুহৃদ-শুভাকাঙ্ক্ষী তাকে দত্তক নিতে চাইলেও আমরা তাকে কারও হাতে তুলে দিতে পারিনি। বরং খুঁজে বের করা হয়েছে তার মাকে। পুলিশ এক্ষেত্রে অসাধ্য সাধন করেছে। অবশেষে আমরা তাকে তার মায়ের কোলে তুলে দিতে পেরেছিলাম।অদ্ভূত এক মায়ায় সে বেঁধে ফেলেছে আমাদের। আজ পুলিশ সুপার, এডিএম, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, ইউএনও সদরসহ কন্যাকে আবার দেখতে গেলাম তার বাড়ি। রাজকুমারী হয়তো রাজপ্রাসাদে নেই, তবে মায়ের কোলে আছে। নিরাপদে আছে। আল্লাহ তাকে হেফাজতে রাখুন। গত ২২ অক্টোবর ১৮ দিন বয়সী শিশু রুমঝুম মায়ের কোলে ফিরে। ওই রাতে শিশুটিকে তার মা রিমু আক্তারের কোলে তুলে দেন ডিসি সাবিনা ইয়াসমিন।ডিসি সাবিনা ইয়াসমিন শিশুটির নাম রাখেন রাজকন্যা রুমঝুম। এ সময় শিশুটির মাসহ তার পরিবারের সদস্যরা জেলা প্রশাসকের দেয়া নামটি রাখতে হাসিমুখে সম্মত হন।মেয়েকে কোলে পেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন শিশুটির মা রিমু আক্তার। পরে তিনি শিশুটিকে এভাবে ফেলে যাওয়ার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে সবার কাছে ক্ষমা চান। স্বামীর সঙ্গে সাংসারিক টানাপোড়েনে শিশুটিকে দত্তক দিতে চেয়েছিলেন মা রিমু আক্তার। কেউ নিতে আগ্রহ না দেখায় তাকে জেলা শহরের কামাতপাড়া মহল্লার একটি গলিতে শিশুটিকে ফেলে যান তার মা রিমু আক্তার। ফুটফুটে শিশুটিকে উদ্ধারের পর হাসপাতালে ভর্তি করে পুলিশ।এসময় অনেকে তাকে দত্তক নিতে হাসপাতালে ভিড় জমান। ২১ অক্টোবর আটোয়ারী উপজেলা মালিগা থেকে মা রিমু আক্তারকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরে তিনি নিজের ভুল স্বীকার করে আবারও শিশুটি নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেন।


LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here