ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের গতিবেগ ঘন্টায় ১৬০ কিমি থেকে ২০৮ কিমি পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে

0
28

আতঙ্কিত বাগেরহাটের উপকূলবাসী

বাগেরহাট জেলা সংবাদদাতা : বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’এর প্রভাবে দুর্যোগপুর্ন আবহাওয়া বিরাজ করছে, পাশাপশি গুড়ী গুড়ী বৃষ্টিও হচ্ছে। ঘুর্নিঝড় বা ঝড়ো হাওয়ার আশঙ্কায় মোংলা সমুদ্র বন্দরে ৪ নম্বর স্থানীয় হুশিয়ারী সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।


শুক্রবার সকাল থেকে মোংলা বন্দরে, উপজেলা প্রসাশন, পৌরসভায় কন্টোলরুম খোলা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন ও গুড়িগুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে তবে বাতাসের গতিবেগ তেমন না বাড়লেও সাগর রয়েছে উত্তল। সাগরপাড়ে রাশমেলা উপলক্ষ্যে পশুর নদীদিয়ে দর্শনাথীদের না যাওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। এছাড়াও মোংলা বন্দর ও বন্দরে অবস্থানরত সকল বানিজ্যিক জাহাজ শক্ত অবস্থানে রয়েছে। পশুর নদীতে সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার সমুহকে নিরাপদে সরে আসার জন্য নির্দেশনা দিয়েছে বন বিভাগ।

বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গ আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, মধ্য বঙ্গোপসাগরে অবস্থিত ঘূর্ণিঝড় বুলবুল আরও কিছুটা উত্তর উত্তর উত্তর পশ্চিমে অগ্রসর হয়ে আরও শক্তি বৃদ্ধি করে ক্যাটাগরি ২ ক্ষমতাসম্পন্ন ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ে পরিনত হয়েছে, এবং এটি এখন ক্রমশ উত্তর দিকে অগ্রসর হচ্ছে এবং এটি এখন মধ্য বঙ্গোপসাগর এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে।

ঘূর্ণিঝড় টি আজ ০৮ ই নভেম্বর শুক্রবার বিকেল ০৪:৫৫ মিনিটে মংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ৫৪৭ কিলোমিটার দক্ষিনে অবস্থান করছিলো, এটি আরও জোরদার হয়ে উত্তর দিকে অগ্রসর হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুল কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটার এর ভেতরে বাতাসের একটানা গড় গতিবেগ ঘন্টায় ১৬০ কিলোমিটার, যা সর্বোচ্চ দমকা হাওয়া আকারে ঘন্টায় ২০৮ কিলোমিটার (১ মিনিট স্থিতি) পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এটি আরও শক্তি বৃদ্ধি করে ক্যাটাগরি ৩ ক্ষমতাসম্পন্ন ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ে রুপান্তর হতে পারে। ঘূর্ণিঝড়টি ভারতের উড়িষ্যা রাজ্যের একদম নিকটবর্তী অঞ্চল দিয়ে রিকার্ভ করে পশ্চিম বাংলা উপকূলের দক্ষিন চব্বিশ পরগনা হয়ে বাংলাদেশের দক্ষিন পশ্চিম উপকূলে প্রবল শক্তি নিয়ে আছড়ে পড়তে পারে।


ঝড়টি অতিক্রম কালে ঘূর্ণিঝড় এর প্রভাবে দেশের উপকূলীয় জেলা সমুহে নিচু এলাকায় স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ১৫ থেকে ২০ ফুট উচ্চ সুনামি হতে পারে।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র প্রভাবে মোংলা সমুদ্র বন্দরে খোলা হয়েছে তিনটি কন্ট্রোলরুম। বন্দরে এই মুহূর্তে মেশিনারি, কিংকার, সার, জিপসাম, পাথর, সিরামিক ও কয়লাসহ দেশি বিদেশি মোট ১৪ টি বাণিজ্যিক জাহাজ অবস্থান করছে। এসব জাহাজে পন্য খালাসে সতর্কতা জারি করা হবে বলেও জানান বন্দরের হারবার মাস্টার কমান্ডার শেখ ফকর উদ্দিন। ‘বুলবুল’র প্রভাবে কন্ট্রোল রুম খুলেছে মোংলা পোর্ট পৌরসভা ও উপজেলা প্রশাসন।


উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রাহাত মান্নান বলেন, প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের কারণে উপজেলার সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করেছি। এছাড়াও ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় উপজেলার ঘুর্নিঝড় প্রস্তুতি কর্মসুচি’র (সিপিপি) ৬৬টি ইউনিটের ৯শ ৯০জন সেচ্ছাসেবককে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। শুক্রবার বিকাল ৪টায় উপজেরায় জরুরী সভা করা হবে বলেও জানান এ কর্মকর্তা।


পুর্ব সুন্দরবনের চাদঁপাই রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ শাহিন কবির জানান, আগত ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাব মোকাবেলায় সকল বনরক্ষীদের প্রস্তুত রাখা হয়েছে। রেঞ্জ অফিস থেকে পর্যাবেক্ষণ করা হচ্ছে। সাগরপাড়ে আলোরকোল ও দুবলার চরে অবস্থান নেওয়া সকল জেলেদের পরবর্তী নিদের্শনা না দেওয়া পর্যন্ত সগরের গহিনে মাছ ধরতে যাওয়ার জন্য নিষেধ করা হয়েছে। তাছাড়া বঙ্গোপসাগর ও সুন্দরবনের নদী ও খালে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার সমূহকে নিরাপদ আশ্রায় যেতে এবং সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এর সম্ভাব্য আঘাতজনিত কারণে আজ ০৮ নভেম্বর ২০১৯ তারিখ সকালে জেলা প্রশাসক, বাগেরহাট এর সভাপতিত্বে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয় সভায় আসন্ন ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় বাগেরহাট জেলার ফোকাল পার্সন হিসেবে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক), জনাব মো: কামরুল ইসলামকে দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে। তাঁর মোবাইল নম্বর ০১৭১৬৪২২৬৩৫ তে কল করে ঘূর্ণিঝড় সংক্রান্ত বিষয়ে সহায়তা চাইতে বলা হয়েছে। জেলার ৯টি উপজেলাতে আশ্রায়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here