অবশেষে বোয়ালখালীতে গৃহবধূ অপহরণ নাটকের ইতি

0
220

মোঃ জামাল (বোয়ালখালী প্রতিনিধি) চট্টগ্রাম:

(সাথী ভালবাসা মন ভুলে না) যদিও এটি একটি গানের কলি কিন্তু বাস্তবে এমনটি প্রমান করলেন বোয়ালখালী উপজেলার পশ্চিম গোমদন্ডী গ্রামের গৃহবধু ফাতেমা আক্তার নিপা

তিনি গত ১১ নভেম্বর নগরীর কাপ্তাই রাস্তার মাথা থেকে সন্তানসহ অপহৃত হয়েছিলেন পরিবারের দাবী তাকে অটোরিক্সা যোগে অপহরন করা হয়েছে

ঘটনায় নগরীর চান্দগাঁও থানায় একটি অভিযোগ করেছিলেন অপহৃতার পরিবার নিখোজঁ কিনা অপহকরণ নিয়ে নানান মত

ঘটনার অনুসন্ধানে নামে কাউন্টার টেররিজম চট্টগ্রামের একটি দল বেরিয়ে আসে অপহরন নাটকের আসল রহস্য

কাউন্টার টেররিজম চট্টগ্রামের প্রধান উপ কমিশনার মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, ‘সিএনজি অটোরিকশা করে গত ১১ নভেম্বর আমানবাজার থেকে কাপ্তাই রাস্তার মাথায় এলে পাঁচ মিনিটের মাথায় সিএনজিচালক ফাতেমা আক্তার নিপা (২৪), ছেলে আদনান সাইদ অয়ন ( ) মেয়ে ফাহমিদা জাহান রিমি () কে নিয়ে সিএনজি অটোরিকশাচালক গাড়ি ঘুরিয়ে অজ্ঞাত স্থানে চলে যায়এমন অভিযোগ ছিল পরিবারের। তদন্তে নেমে দুই পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি রাস্তার মাথার সব সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়। অনেক চেষ্টার পর কয়েক ঘণ্টার ফুটেজ থেকে দুটি সিএনজি অটোরিকশাকে সন্দেহ করা হয়। পরে সেই দুই সিএনজি অটোরিকশা চালককেও আটক করা হয়। এরমধ্যে হালিশহরের বাসিন্দা এক চালক নিশ্চিত করেন তিনিই ছিলেন ওই দিনের সেই সিএনজি অটোরিকশা চালক।

সিএনজি অটোরিকশা চালকের বরাত দিয়ে উপ কমিশনার মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ আরও বলেন, –আমানবাজার থেকে যখন বোয়ালখালীর উদ্দেশ্যে কাপ্তাই রাস্তার মাথায় পৌঁছে সিএনজি অটোরিকশা। চালককে সেখানে থামাতে বলেন নিপা। তিনি দুই সন্তান নিয়ে গাড়িতে বসে থাকলেও তার মাকে বলেন ভ্যানগাড়িতে থাকা কাপড় কিনতে যেতে। এরই মাঝে নিপা চালককে বলেন তাদের দ্রুত নগরীর শিল্পকলা একাডেমিতে নিয়ে যেতে। সময় সিএনজি অটোরিকশা চালক অপর যাত্রী তার মাকে ছাড়া যেতে আপত্তি জানান। তখন নিপা বলেন মোাবাইলে কল করে তার মাকে জানাবেন, জরুরি কাজে শিল্পকলায় যেতে হচ্ছে। সেই কথা বলে একই সিএনজি অটোরিকশা করে নিপা সন্তানদের নিয়ে শিল্পকলায় চলে যান।

মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, ‘ ঘটনায় যখন থানায় অভিযোগ হয় তখন আমরা সিরিয়াসলি তদন্তে নামি। প্রথমে কাপ্তাই রাস্তার মাথার সব সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করি, তা পর্যালোচনা করি। সেখান থেকে দুটি সিএনজি চিহ্নিত করি। পাশাপাশি দুই পরিবারের সব সদস্যদের সঙ্গে কথা বলি। আশপাশের আরও অনেকের সঙ্গে কথা বলে একটা ধারণা পাই। তদন্তে জানতে পারি এটা অপহরণ নয়, স্বেচ্ছায় নিখোঁজ।

ঘটনার তদন্তের এক পর্যায়ে বেরিয়ে আসে গৃহবধু ফাতেমা আক্তার নিপা বিয়ের পূর্বের কর্থত প্রেমিক বাবুর কথা প্রবাসী বাবু সীতাকুন্ড উপজেলার বাসিন্দা প্রেমের সর্ম্পক প্রণয়ে গড়ানোর আগেই পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়ে যায় বোয়ালখালী উপজেলার পশ্চিম গোমদন্ডী গ্রামের কুয়েত প্রবাসী রুবেল এর সাথে বিয়ে হলেও প্রযুক্তি কল্যানে রাধা ছাড়তে পারেনি কৃষ্ণকে ইমো ব্যবহারের মাধ্যমে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল বাবু আর নিপার অবশেষে কথিত প্রেমিকের টানে নিখোজ নাটকের গল্প উম্মেচন হয়েছে

 জানা যায়যেদিন নিপা নিখোঁজ হন সেদিনই দুবাই থেকে বাবু চট্টগ্রামে আসেন। যা বাবু তার পরিবারকেও জানাননি। বিমানবন্দর থেকে সোজা দামপাড়া আসেন। সেখান থেকে হান্ডি রেস্টুরেন্টে খাওয়া শেষে সোহাগ পরিবহনের বাসে চড়ে ঢাকার সাভারের বাবুর এক বন্ধুর বাসায় উঠেন এই প্রেমিকযুগল। তবে আমাদের জালে তাদের ধরা পড়তেই হলো।

আইনগত করণীয় সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘যেহেতু প্রেমের সম্পর্কের জেরে স্বেচ্ছায় নিখোঁজ হয়েছেন তারা। তাই এখানে বাবুরও কোনও দোষ নেই। আর তাকেও আমরা পাইনি। বাবুর পরিবারকে চাপ দিলে বাবুর পরিবারই নিপাকে আমাদের কাছে হস্তান্তর করেন। এরপর নিপা দুই সন্তনকে চান্দগাঁও থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

প্রসঙ্গে চান্দগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘ফাতেমা আক্তার নিপার পরিবারের জিম্মায় তাদের হস্তান্তর করা হয়েছে। কেননা এই ঘটনায় অভিযোগ নিলে কোনও মামলা হয়নি।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here