১৩৭ প্রতিষ্ঠানকে পৌনে ৫ লাখ টাকা জরিমানা

0
79

করোনাভাইরাস আর রমজান মাসকে পুঁজি করে ভোক্তাদের সঙ্গে প্রতারণা করছে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী। কারসাজি করে বেশি দামে বিক্রি করছে পণ্য। ওজনে কম দেয়া ও নিত্যপণ্যের মূল্য প্রদর্শন না করায় ১৩৭টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করা হয়েছে।

শনিবার (২ মে) রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে বিভিন্ন জেলায় অভিযান করে এসব জরিমানা করে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর।

অধিদফতর থেকে জানানো হয়, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির সার্বিক নির্দেশনায় ও অধিদফতরের মহাপরিচালক বাবলু কুমার সাহার নেতৃত্বে সারাদেশে ১০২টি পাইকারি ও খুচরা বাজারে অভিযান করা হয়। অভিযানে ১৩৭টি প্রতিষ্ঠানকে চার লাখ ৭৬ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন) শামীম আল মামুনের তত্ত্বাবধায়নে অভিযান পরিচালনা করেন ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক (উপসচিব) মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার, প্রধান কার্যালয়ের উপপরিচালক মো. মাসুম আরেফিন, বিকাশ চন্দ্র দাস ও সহকারী পরিচালক আব্দুল জব্বার মন্ডল, রোজিনা সুলতানা, মাগফুর রহমান, ইন্দ্রানী রায় ও মাহমুদা আক্তার।

ঢাকা মহানগরীতে অধিদফতরের আটজন কর্মকর্তার নেতৃত্বে ২১টি বাজারে (পাইকারি ও খুচরা) অভিযান করা হয়। ঢাকার বাইরে বিভাগে উপপরিচালক ও জেলায় সহকারী পরিচালকরা ৮১টি বাজারে অভিযান করেন। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে টিসিবির ন্যায্য মূল্যের পণ্য বিক্রয় (ট্রাকসেল) তদারকি করা হয় এবং ভোক্তাদের সরকার নির্ধারিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে পণ্য ক্রয় করতে আহ্বান জানানো হয়।

অভিযান প্রসঙ্গে অধিদফতরের মহাপরিচালক বাবলু কুমার সাহা বলেন, রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার স্থিতিশীল রাখতে বাণিজ্যমন্ত্রীর সার্বিক সহযোগিতায় ও নির্দেশনায় সপ্তাহিক ছুটির দিনেও রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে পাইকারি ও খুচরা বাজার তদারকি করা হয়।

তিনি আরও বলেন, দেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের পর্যাপ্ত মজুত রয়েছে। কৃত্রিম উপায়ে কোনো পণ্যের সংকট সৃষ্টি করে ভোক্তার ভোগান্তি ঘটালে দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে এবং তা অব্যহত থাকবে।

এছাড়াও নিত্যপণ্যের উৎপাদনকারী, আমদানিকারক, পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীদের ক্রয়মূল্যের ভাউচার এবং মূল্যতালিকা সংরক্ষণ ও প্রদর্শন করতে এবং ন্যায্যমূল্যে পণ্য বিক্রয়ের জন্য আহ্বান জানানো হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here